বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৫৯ অপরাহ্ন

সালথায় গৃহবধু হত্যা না আত্মহত্যা

মজিবুর রহমান, সালথা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি, একুশে কণ্ঠ ডটকম।।

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার মাঝারদিয়া ইউনিয়নের হোড়েরকান্দী (চান্দাখোলা) গ্রামের আয়ুব সরদারের মেয়ে সিতারা (২২)

বিষপানে মৃত্যু হলেও পরিবারের অভিযোগ হত্যার। নিহত সিতারার পরিবার ও স্থানীয় লোকজন জানান পাশ্ববর্তী সোনাপুর ইউনিয়নের বড় বাংরাইল গ্রামের বিশাই শেখের ছেলে মালয়েশিয়া ফেরত আওলাদ শেখ (৩৮) এর সাথে মোবাইলে বিয়ে হয়। গত ৩ অক্টোবর মালয়েশিয়া থেকে আওলাদ শেখ বাড়িতে আসে এবং বর্তমান দ্বিতীয় স্ত্রী সিতারার বাবার বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত করে।

বৃহস্পতিবার (১৩ অক্টোবর) সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে স্বামী আওলাদ শেখ এর বাড়ি বড় বাংরাইল গ্রামে যায় এবং দুপুরে লাশ হয়ে পিতা বাড়িতে পৌছায়। আওলাদ শেখ এর প্রথম স্ত্রী রেবেকা বেগম বলেন, আনুমানিক সকাল ৮ থেকে ৯ টা বাজে এমন সময় সেতারা আমাদের বাড়িতে আসে এবং বলে আমি বিষ খেয়ে আইছি আমাাকে হাসপাতালে নেন পরে আমাদের বাড়ির লোকজন সিতারাকে প্রথমে ফুলবাড়িয়া বাজারের ডাক্তারের কাছে নেয়, সেখান থেকে অবস্থা খারাপ দেখে পরে নগরকান্দা হাসপাতালে নিলে সেখানে দুপুরে তার মৃত্যু হয়।

এদিকে মেয়ের বিষপান করার বিষয় তার বাবার বাড়ির লোকজনকে না জানিয়ে মেয়ের লাশ নিয়ে বাড়িতে পৌছালে তখন জানতে পারে যে সিতারা মারা গেছে। সে সময় লাশের সাথে থাকা আওলাদ শেখ এর দুই বোনকে উত্তম মাধ্যম প্রহার করে নিহতের স্বজনরা। নিহত সিতারার মা বলেন আমার মেয়ে সকালে ভালোভাবে বাড়ি থেকে বাহির হয়ে গেছে মেয়ে বিষ খেয়েছে বা তারা মেযেকে হাসপাতালে নিযেছে তা আমাদের কে জানাইনি। আমার মেয়ে গার্মেন্সে চাকরি করতো আওলাদ তার বউ ও দুটি সন্তান থাকা সত্বেও আমার মেয়ে সিতারাকে ফাসিয়ে মোবাইলে বিয়ে করে ওরা আমার মেয়েকে বিষ খাওয়াইয়া মাইরা ফেলাইছে আমরা মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

বিষপান করার বিষয় জানার অনেক পরে হাসপাতালে নেওয়ায় এবং সময়মতোন চিকিৎসা না দেওয়ায় সিতারা মারা যায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা অনেকেই বলেন। ঘটনারপর আওলাদ শেখ গা-ঢাকা দিয়ে আছেন সালথা থানা পুলিশ লাশের সুরতহাল রিপোর্ট শেষে পোস্টমর্টেম করার জন্য ফরিদপুর শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করেন।

সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ শেখ সাদিক বলেন, বিষপান করে মারা গেছে শুনেছি, নগরকান্দা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে তারা লাশ নিয়ে আসছে, আমাদের আইনানুগ যে ব্যবস্থা নেওয়ার তাই আমরা নিব।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution