মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৬ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশকে ইতিহাস গড়তে হলে জিততেই হবে নেপালের বিরুদ্ধে

নেপালের বিরুদ্ধে ম্যাচ সামনে রেখে বাংলাদেশের ফুটবলারদের পরামর্শ দিচ্ছেন অস্কার ব্রুজোন -বাফুফে

মুজিবর রহমান বাবু, ই-কণ্ঠ টোয়েন্টিফোর ডটকম : ১৩ অক্টোবার বুধবার বিকেল ৫টায় মালদ্বীপের রাজধানী মালের রাশমি ধান্দু স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ মোকাবেলা করবে নেপালকে। ৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে নেপাল। ৪ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে বাংলাদেশ। এর ঘণ্টা পাঁচেক পর পরের ম্যাচে স্বাগতিক মালদ্বীপের মুখোমুখি হবে ভারত। আর মাত্র তিনটি ম্যাচ বাকি। যার দুটিই অনুষ্ঠিত হবে ১৩ অক্টোবর বুধবার।

আর যে ম্যাচ দুটি হবে, সেগুলোকে ‘অলিখিত সেমিফাইনাল’-এর ম্যাচ বলা যেতে পারে। কেননা এই ম্যাচের ফলের নিষ্পত্তির ওপরই নির্ভর করছে কোন্ দুটি দল নাম লেখাবে ফাইনালে
এবারের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ হচ্ছে ত্রয়োদশ আসর। এই আসরের সঙ্গে অনেক মিল পাওয়া যায় ১৯৯৩ সালে পাকিস্তানের লাহোরে অনুষ্ঠিত প্রথম আসরের ফরম্যাট। এবারের মতো সেবারও খেলা গ্রুপ পর্বে হয়নি, হয়েছিল সিঙ্গেল লীগ ভিত্তিতে। তবে দুটি অমিলও আছে।

২০০৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে সবশেষ ফাইনাল খেলার পর কেটে গেছে ১৬ বছর। সাফের ৬টি আসর। কিন্তু শিরোপা লড়াইয়ের মঞ্চে ওঠা হয়নি বাংলাদেশের। নেপাল ম্যাচ সামনে রেখে অধিনায়ক জামাল ভূইয়া জানালেন, ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসার প্রত্যয়।

এবার যেমন অংশ নিয়েছে পাঁচ দেশ, ১৯৯৩ আসরে অংশ নিয়েছিল চার দেশ। প্রথমবারের মতো সাফের ফাইনাল খেলতে ড্রই যথেষ্ট হবে নেপালের জন্য। অন্যদিকে, জয় ছাড়া বিকল্প পথ খোলা নেই ২০০৩ সালে প্রথম ও সবশেষ এ আসরের শিরোপা জেতা বাংলাদেশের সামনে।

গত সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে নেপালের কাছে হেরে গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে পড়েছিল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচেও ঠিক একইরকম পরিস্থিতিতে ছিল তারা। সেদিন বাংলাদেশ হেরে যায় ২-০ গোলে। এবার অবশ্য ভালো কিছুর ব্যাপারে আশাবাদী জামাল। মালদ্বীপে থাকা বাংলাদেশিদের সমর্থনও আশা যোগাচ্ছে তাকে।

“(মালদ্বীপের বাংলাদেশি সমর্থকদের থেকে) ভালো সাড়া পেয়েছি। আশা করছি কালও পাব। আশা করি, তারা বেশি করে টিকেট পাবে। শেষ ম্যাচে পায়নি কেন, জানি না। আশা করি, তারা ম্যাচ উপভোগ করতে পারবে। ভালো ম্যাচ হবে। আমরা জয়ের জন্য খেলব।”

মালদ্বীপের বিপক্ষে ২-০ গোলে হারের পর পাঁচ দিন বিশ্রাম পেয়েছে বাংলাদেশ। সতেজ হয়ে মাঠে ফিরতে পারায় ‘ইতিহাস’ গড়তে আশাবাদী জামাল।
এবারের আসরে ফিফা নিষেধাজ্ঞার কারণে পাকিস্তান এবং কোভিডের কারণে বিদেশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে নিজ দেশের সরকারের অনুমতি না পাওয়ায় ভুটান অংশ নেয়নি। চলমান টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত ৫ দলের মধ্যে একটির বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেছে। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে টিকে আছে বাকি চার দলই। সেই দলগুলোই আজ খেলবে।
৩ ম্যাচে ২ জয়, ১ হারে ৬ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে আছে এই প্রথম এককভাবে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজন করা স্বাগতিক মালদ্বীপ (২ বারের চ্যাম্পিয়ন)। সমান ম্যাচে সমান জয় ও সমান হারে সমান পয়েন্ট নেপালেরও।

বাংলাদেশ ফাইনালে যেতে হলে তাদের অবশ্যই জিততেই হবে। যাকে বলে ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচ। বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের কাছে ‘সোনার হরিণ’ কোনটি? ঠিক ধরেছেনÑসেটা হচ্ছে সাফ (সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন) চ্যাম্পিয়নশিপের ট্রফি। এই ট্রফি তারা শেষবারের মতো জিতেছিল ১৮ বছর আগে। নিজ দেশে অনুষ্ঠিত ২০০৩ আসরে তারা ফাইনালে মালদ্বীপকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো মেতেছিল শিরোপাজয়ের উল্লাসে।

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবল তো বটেই, সার্বিকভাবেই সব ধরনের টুর্নামেন্ট মিলিয়ে লাল-সবুজ বাহিনীর ওটাই ছিল প্রথম ও শেষ ট্রফি অর্জন। এরপর দেখতে দেখতে কেটে গেছে দেড় যুগ। কিন্তু আর কোন ট্রফি স্পর্শ করার সৌভাগ্য হয়নি ‘দ্য বেঙ্গল টাইগার্স’ বাহিনীর।

“অতীত নিয়ে বেশি কথা বলতে চাই না। ওরা শক্তিশালী দল। তবে আমাদের দলেও বিপিএলের (বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ) সেরা খেলোয়াড় খেলছে। আগামীকাল ইতিহাস গড়তে পারব। খেলোয়াড়রা এটা জানে। ফাইনালে জাগয়া করে নিতে চাই। আগামীকাল বুধবার নেপালের বিরুদ্ধে জেতার চেষ্টা করবে জামাল ভুঁইয়ারা।”

 

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution