মঙ্গলবার, ০৫ Jul ২০২২, ১২:৫৪ অপরাহ্ন

কুড়িগ্রামে পটলের বাম্পার ফলন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি, ,ই-কণ্ঠ টোয়েন্টিফোর ডটকম ॥  কুড়িগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় এ মৌসুমে পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে কয়েকদিনের টানা বর্ষণের ফলে পটলের ক্ষেত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় উৎপাদিত পটল নিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েছেন চাষীরা।

এ অবস্থায় বৃষ্টিতে পটলের গাছ মরে যাওয়াসহ বাজারে আমদানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পটলের দাম অনেক কমেছে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে পটলের দাম কেজি প্রতি কমেছে ১০-১৫ টাকা। বর্তমানে কৃষকরা পাইকারদের কাছে প্রতি কেজি পটল বিক্রি করছেন ৬-৭ টাকায়।

কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, জেলায় ২শ ৫০ হেক্টর জমিতে পটলের আবাদ হয়েছে। এদিকে শুধু সদর উপজেলায় পটলের আবাদ হয়েছে ৬২ হেক্টর জমিতে।

চাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পটল চাষে প্রতি বিঘা জমিতে সবমিলিয়ে ৩০-৪০ হাজার টাকা খরচ হলেও প্রতি বিঘা জমির উৎপাদিত পটল ৯০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকায় বিক্রির আশা ছিল তাদের। তবে ভারী বৃষ্টি ও আমদানি বেশি থাকার কারণে পটলের দাম পাওয়া যাচ্ছে না। প্রতি মণ পটল বর্তমানে বাজারে ২শ থেকে ২শ ৫০ টাকায় বিক্রি করছেন তারা।

সদরের পাঁচগাছী ইউনিয়নের উত্তর নওয়াবস গ্রামের পটল চাষী নুর ইসলাম বলেন, আমি ১ বিঘা জমিতে পটলের আবাদ করছি। প্রথম দিকে খুবই ভালো দাম পেয়েছি। এখন আর ভালো দাম পাচ্ছি না। আগে তো এখানকার পটল দেশের বিভিন্ন এলাকায় যেত, এখন আর যাচ্ছে না। বর্তমানে ২শ থেকে ২শ ৫০ টাকা প্রতি মণ পটল বিক্রি করছি। আবার বৃষ্টির কারণে পটলের গাছও মরে যাচ্ছে।

ওই ইউনিয়নের সিতাইঝাড় গ্রামের মোহাম্মদ আলী বলেন, বৃষ্টির কারণে পটলের গাছ মরে যাচ্ছে, ক্ষেতে পানি জমেছে। বর্তমানে পটল বাইরের জেলাতে না যাওয়ার কারণে দাম অনেক কমেছে। না বিক্রি করে তো কোনো লাভ নেই, যা পাচ্ছি তাই লাভ, এতো পটল কী করব আমরা।

কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আব্দুল রশিদ জানান, যে সময় বাজারে কোনো সবজির উৎপাদন বেশি হয় ঠিক সে সময়ে দামটা একটু কমে যায়। বর্তমানে বাজারে ৭-৮ টাকা প্রতি কেজি পটল বিক্রি করছেন চাষিরা। কৃষকরা এতো টাকা পয়সা খরচ করে যদি ন্যায্য মূল্য না পায় তা তো অবশ্যই হতাশার।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution