বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন

হাসনাবাদে শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে পশুর হাট

স্টাফ রিপোর্টার:: পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের হাসনাবাদে শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে কোরবানীর পশুর হাট। মহামারী করোনাভাইরাসে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে গরু বেচা-কেনা।

সরজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, এবারের কোরবানীর পশুর হাটে ছোট-বড় রঙ-বেরঙের বহু গরুর সমারোহ হয়েছে। গরু বিক্রেতারা দুর-দুরান্ত থেকে গরু নিয়ে হাজির হয়েছে হাটে। এবার কোরবানী হাটে প্রায় ৪/৫ হাজার গরু উঠেছে। এরমধ্যে রাজা বাবু নামে বিশাল এক ফ্রিজিয়াম জাতের গরু উঠেছে, যা এই হাটের মধ্যে সবচেয়ে বড় গরু, ওজন ২৫/২৭ মণ, দাম ৭ লক্ষ।

কুষ্টিয়া থেকে আগত গরু বিক্রেতা জানায়, গত কয়েকদিন হলো ২৫টি গরু নিয়ে এসেছি, তবে ক্রেতা আগের তুলনায় অনেক কম। তাছাড়া মহামারী করোনাভাইরাসের কারনে গবাদিপশুর খাবার বেশি দামে কিনে খাওয়াতে হয়েছে, যে কারনে এবার গরু একটু বেশি দামেই বেঁচতে হবে, তানাহলে চলবে না।

ফরিদপুরের গরু বিক্রেতা জানায়, প্রাকৃতিকভাবে কাচা ঘাস আর ভূসি খাইয়ে নিজের হাতে পালন করা ১২টি দেশী ষাঁড় গরু নিয়ে এসেছি। কিন্তু এপর্যন্ত একটি গরুও বিক্রি করতে পারিনি। তবে আশা আছে যদি ঠিকমতো দাম পাই গরু দিয়ে চলে যাবো।

আরেক বিক্রেতা জানায়, কি আর বলবো এতো দূর থেকে গরু নিয়ে এসেছি বিক্রি করার জন্য ক্রেতারা যে দাম বলে সে দামে গরু কিনতেও পারিনি, তবে আশানূরূপ দাম পেলে গরুগুলো বিক্রি করে চলে যাবো।

নাম জানাতে অনিচ্ছুক এক ক্রেতা জানায়, গত বছরের তুলনায় এবার গরুর দাম অনেক বেশী। ৮০ হাজার টাকার গরু এবছর চাচ্ছে দেড় লাক্ষ। আরেক ক্রেতা জানায়, হাটে আনেক গরু উঠেছে তবে বেচা-কেনা অনেক কম। গরু কেনার জন্য এসেছি কিন্তু যে দাম চাচ্ছে তাতে পছন্দ করা গরু কিনতে পারছিনা।

হাটের ইজারাদাররা জানায়, মহামারী করোনাভাইরাসে সরকারের নির্দেশনা মেনে হাট পরিচালনা করা হচ্ছে। এবং হাটে যারা আসছে তাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution