বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৫৯ অপরাহ্ন

রাণীশংকৈলে পাটের ভাল দাম পেয়ে কৃষকের মুখে হাসি

dig

রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি:: ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে হাটে পাট উঠতে শুরু করেছে। বর্তমানে মণপ্রতি পাট বিক্রি হচ্ছে ২৮০০ থেকে ৩২০০ টাকায়। গত বছর ছিল ২২০০ থেকে ২৬০০ টাকা। শুরুতে দাম ভালো হওয়ায় পাট মৌসুমের শেষের দিকে দাম আরও বাড়বে বলে ধারণা কৃষকদের। ভালো দামে বিক্রি করতে পেরে কৃষকরা খুশি।

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ ও কাতিহার বাজারে নতুন পাট নিয়ে আসছেন কৃৃষকরা। ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে দর কষাকষি চলছে। এখন হাট-বাজারে পাটের আমদানি বাড়তে শুরু করেছে। সেই সঙ্গে পাটকলগুলোতে বেড়েছে পাটের চাহিদা। এ কারণে প্রতি হাটেই পাটের দাম বাড়ছে। ভালো দাম পেয়ে খুশি পাটচাষিরা।

পাটগাঁও এলাকার কৃষক মতিফর দশ মণ পাট বাজারে বিক্রি করেছেন। তিনি বলেন, ‘পাটের ভালো দাম পেয়ে আমি খুশি। এ বছর শুরুতেই পাটের বাজার ভালো। এবার পাঁচ বিঘা জমিতে পাট আবাদ করেছি। প্রতি বিঘা জমিতে গড়ে দশ মণ পাট পেয়েছি। পানি সংকটের কারণে জমি থেকে পাট কেটে অন্যত্র জাগ দিতে হয়েছে। এতে খরচ বেড়েছে। অন্যান্য বছর প্রতি বিঘা জমিতে পাট চাষে ১৫ হাজার টাকা খরচ হতো। এ বছর ১৬ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তারপরও খরচ বাদ দিয়ে দশ মণ পাটে ১৪ হাজার টাকা লাভ হয়েছে।’

বাচোর গ্রামের পাট চাষি কালিমহন বলেন, ‘বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি কম হয়েছে। তাই খাল বিলে পর্যাপ্ত পানি নেই। উঁচু জমিতে বেশি পাট হয়। এ পাট কেটে নিচু এলাকার খাল-বিলে জাগ দিতে হচ্ছে। এতে খরচ বেড়েছে। কিন্তু পাটের ভালো দাম পেয়ে এ কষ্ট লাঘব হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘তোষা পাটের ৮০টি পাট কাঠির একটি বান্ডিল ১০০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা দরে বিক্রি করছি। এতে পাট জাগ, পরিবহন, বাছাই ও শুকানোসহ সব ধরনের খরচ উঠে আসছে। সব মিলিয়ে পাটে এখন আমাদের সুদিন ফিরেছে।’

উপজেলার মাধেপুর গ্রামের ফয়েজ বলেন, ‘এক বিঘা জমিতে পাট চাষ করতে লাঙল, বীজ, সেচ, কাটা, পরিষ্কার করা ও সার দেওয়াসহ যাবতীয় খরচ হয় ৮-১০ হাজার টাকা। এবার উৎপাদন হচ্ছে ১০ থেকে ১২ মণ। বর্তমানে বাজারে নতুন পাট প্রতিমণ বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ৭০০ থেকে তিন হাজার টাকা।’ এবার শুরুতে পাটের দাম ভালো হলেও কাটার পর পচাতে দিয়ে বিপাকে পড়তে হয়েছে। বর্ষাকালেও তেমন বৃষ্টি না হওয়ায় খাল-বিল-পুকুরে পানি ছিল না। এর ফলে পাট জাগ দেওয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা হয়েছিল। মধ্য শ্রাবণের বৃষ্টিতে সেই সমস্যার কিছু সমাধান হয়েছে। অনেকে সেচ দিয়ে পাট জাগ দিয়েছেন। সিংপাড়া গ্রামের শামীম তিন বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছেন। অনাবৃষ্টি আর প্রচন্ড খরতাপে পাটগাছ খর্বাকৃতির হয়ে আছে। জমির বেশির ভাগ পাটগাছ পুড়ে মরে যাচ্ছে। জমি বর্গা নিয়ে পাট চাষ করতে গিয়ে সর্বস্বান্ত হয়ে গেছে। তার মতো শত শত চাষি এবার পাট চাষ করেছেন। কিন্তু খরায় সর্বনাশ হয়ে গেছে।

কৃষাণী ললিতা বলেন, এবার আমরা নতুন কাপড় পরতে পারবো, বাচ্চাদের ভালো কিছু খাওয়াতে পারবো, স্কুলে এবং প্রইভেট পড়তে পারবে। এই সরকার আমাদেরকে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে পাট চাষাবাদের জন্য অনেক উৎসাহিত করতো, ফ্রি বিজ দিয়েছিলো, সব সময় খবর রাখতো কখন সার বিষ দিতে হবে। খুলনা জুট মিলের কর্মকর্তা দুলাল উদ্দিন বলেন, ‘কোরবানির ঈদের আগেই হাট-বাজারে নতুন পাট আসতে শুরু করে। তখন প্রতিমণ পাট ২৭০০ থেকে ২৮০০ টাকা দরে কেনা-বেচা হচ্ছিলো। ঈদের পর পাটকলগুলো পাট কিনতে শুরু করে। তারপর থেকেই পাটের দাম বাড়তে শুরু করে। গত হাটে প্রতিমণ পাট ২৮০০ টাকা থেকে ৩২০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। পাটের বাজারে এখন তেজি ভাব বিরাজ করছে। জুট মিলগুলো এভাবে পাট কেনা অব্যাহত রাখলে পাটের বাজার আরও বাড়তে পারে।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর হতে জানা যায়, এ বছর উপজেলায় ১৫৫০ হেক্টর জমিতে তোষা পাট আবাদ হয়েছে। পাট উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৪ শত হেক্টর। গত বছর ১২৫০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছিল। ইতোমধ্যে উপজেলার ২৫ ভাগ পাট বাজারে এসেছে। বাজারে পাটের দাম ভালো রয়েছে। চলতি বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টিপাত কম হয়েছে। পানির অভাবে পাট জাগ দিতে কৃষকদের সমস্যা হলেও মধ্য শ্রাবণের বৃষ্টিতে এই সমস্যার সমাধান হয়েছে। বাজারে পাটের দামের বিষয়ে তিনি জানান, মৌসুমের শুরুতে কাতিহার বাজারে প্রতিমণ পাট ২৮০০ থেকে ৩২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে জাদুরানি হাটে প্রতি মণ পাট ২৭০০ থেকে ৩২০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। গত বছর প্রতি মণ পাট মৌসুমের শুরুতে ২২০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে এবং মৌসুমের শেষের দিকে ৩৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তার আগের বছর পাট মৌসুমের শেষের দিকে ৬ হাজার টাকা দরে পাট বিক্রি হতে দেখা গেছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সঞ্জয় দেবনাথ বলেন, আমরা ৮টি ইউনিয়নে ৮টি জুট ভিলেজ করেছি সেখানে কৃষকের হাতে বিনামূল্যে বিজ সরবরাহ করে থাকি।এদিকে কৃষকরা পুকুর ভাড়া নিয়ে আবার কেউ কেউ বিঘা প্রতি পুকুরে পাট জাগ দিচ্ছেন। এতে চাষিদের খরচ কিছুটা বাড়ছে। কিন্তু কোনও উপায় নেই। আবাদ করলে একটু খরচ-কষ্ট করতে হয়। বৃষ্টি না থাকায় মাঠে রোপণ করা পাট নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এখন পাটের জন্য বৃষ্টি দরকার। যাদের জমিতে পাট ভালো আছে, তারাও জাগ দেওয়ার পানি নিয়ে সংকটে পড়েছেন। সেচের পানিতে পাট জাগ দিতে চাষিদের অনেক বেশি টাকা খরচ হয়ে যাবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution