বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৯:১০ পূর্বাহ্ন

রংপুরে ট্রাক-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ নিহত ৫

রংপুর প্রতিনিধি:: রংপুরে ড্রাম ট্রাক ও অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ পাঁচ জন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন আরও তিন জন।

মঙ্গলবার (৫ জুলাই) দুপুর দেড়টার দিকে রংপুর-সুন্দরগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের সরেয়ারতল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার আগমুহূর্তে ট্রাকচালক মোবাইলে কথা বলছিলেন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

নিহতদের মধ্যে দুই জনের পরিচয় নিশ্চিত করেছে পুলিশ। তারা হলেন অটোরিকশাচালক রাজা মিয়া (৩০) ও জান্নাতুল মাওয়া (৫)। বাকি তিন জনের পরিচয় জানা যায়নি। তবে তাদের বাড়ি সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় বলে জানিয়েছে পুলিশ। এক অসুস্থ আত্মীয়কে দেখতে রংপুর শহর থেকে অটোরিকশাযোগে আট জন পীরগাছায় যাচ্ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে অটোরিকশাযোগে রংপুর শহর থেকে পীরগাছায় যাচ্ছিলেন তারা। সরেয়ারতল এলাকায় রংপুরগামী মালবাহী ট্রাক অটোরিকশাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই এক নারী ও অটোরিকশাচালক নিহত হন। এ সময় আহত হন ছয় জন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই জনের লাশ উদ্ধার করেন। আহত ছয় জনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সেখানে আরও তিন জনের মৃত্যু হয়। আহত বাকি তিন জনের মধ্যে দুই জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

প্রত্যক্ষদর্শী ভ্যানচালক আফছার আলী বলেন, ‘ট্রাকচালক এক হাতে সিগারেট ও অন্য হাতে মোবাইলে কথা বলতে বলতে গাড়ি চালাচ্ছিলেন। সিগারেট রাখা হাতে দ্রুতগতিতে গাড়ি চালানোর কারণে নিয়ন্ত্রণ হারান চালক। এ সময় অটোরিকশাকে চাপা দিলে দুমড়েমুচড়ে যায়। হাতে মোবাইল না থাকলে অটোরিকশাটিকে রক্ষা করতে পারতেন চালক।’

এদিকে, নিহত অটোরিকশাচালক রাজা মিয়ার স্বজন স্বপন আহমেদ কান্নায় ভেঙে পড়েন। ঘটনাস্থলে হাউমাউ করে কাঁদছিলেন তিনি। স্বপন বলেন, ‘চালক মোবাইলে কথা বলতে বলতে ট্রাক চালাচ্ছিলেন। গতি নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে অটোরিকশাকে চাপা দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।’

রংপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুস সালাম বলেন, ‘দুর্ঘটনার খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় আহত ছয় জনকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে পাঠানো হয়। পরে শুনেছি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও তিন জন মারা গেছেন। এ নিয়ে দুর্ঘটনায় পাঁচ জন নিহত হলেন।’

মাহিগঞ্জ থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান বলেন, ‘অটোরিকশাচালক রাজা মিয়া ও পাঁচ বছরের শিশু জান্নাতুল মাওয়ার পরিচয় নিশ্চিত হতে পেরেছি। বাকি তিন জনের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। তবে তাদের বাড়ি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি।’

ওসি বলেন, ‌‘ট্রাকটি আটক করা হলেও চালক ও হেলপার পালিয়ে যাওয়ায় আটক করা সম্ভব হয়নি। তাদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ করে আটক করা হবে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন দুর্ঘটনার আগমুহূর্তে মোবাইলে কথা বলছিলেন চালক।’

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution