শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:১৬ পূর্বাহ্ন

মিয়ানমারে বিক্ষোভে পুলিশের গুলি, আরও ২ জনের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মিয়ানমারের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মান্ডালায় সেনা অভ্যুত্থানবিরোধীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ গুলি ছোড়ার পর দুই জনের মৃত্যু হয়েছে, আহত হয়েছেন আরও ২০ জন জানিয়েছে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘পারহিতা ডারহি’। খবর রয়টার্স।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) মিয়ানমারের বেশ কয়েকটি শহরে অভ্যুত্থানবিরোধীরা রাস্তায় নেমে সামরিক শাসনের অবসান এবং গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সু চিসহ অন্যান্যদের মুক্তির দাবিতে শ্লোগান দেওয়া শুরু করে। এসব প্রতিবাদ বিক্ষোভে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর সদস্যসহ কবি এবং পরিবহন শ্রমিকরাও যোগ দেন।

মান্ডালায় পুলিশের কাঁদানে গ্যাস এবং গুলির মুখে কিছু প্রতিবাদকারী গুলতি ছুড়ে জবাব দেয়। তবে পুলিশ তাজা গুলি ছুড়েছে না রাবার বুলেট ব্যবহার করেছে প্রাথমিকভাবে তা পরিষ্কার হয়নি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

মান্ডালায় ভয়েস অব মিয়ানমার সম্প্রচার মাধ্যমের একজন সহকারী সম্পাদক লিন খাংসহ গণমাধ্যম কর্মীরা এবং জরুরি সেবা বিভাগ জানিয়েছে, মাথায় আঘাত পেয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাস্থলে মোট দুই জনের মৃত্যু হয়েছে বলে একজন স্বেচ্ছাসেবী চিকিৎসক নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মাথায় গুলি লেগে একজন ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন। বুকে গুলিবিদ্ধ আরেকজনের পরে হাসপাতালে মারা যান।

এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। মিয়ানমারে নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করা সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ থামার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। সেনাবাহিনী নতুন নির্বাচন করে বিজয়ীর হাতে ক্ষমতা তুলে দেওয়ার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা তা বিশ্বাস করতে পারছে না। ৯ ফেব্রুয়ারি রাজধানী নেইপিডোতে পুলিশ একদল প্রতিবাদকারীকে ছত্রভঙ্গ করার সময় এক তরুণী গুলিবিদ্ধ হন। মাথায় আঘাত পাওয়া ওই তরুণী শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) মারা যান। মিয়ানমারে এবারের অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা সেটি।

তবে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে সহিংসতায় গুরুতর আহত এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যুর কথাও নিশ্চিত করেছে।

এর আগেও মিয়ানমারে প্রায় অর্ধশত বছর সেনা শাসন ছিল। সে সময়কার জান্তাবিরোধী বিক্ষোভগুলোতে নিয়মিত রক্তপাতের ঘটনা ঘটলেও এবার তেমনটা দেখা যাচ্ছে না। তবে প্রতিবাদকারীদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি এবং সোশ্যাল ডিজঅবেডিয়েন্স আন্দোলন (সিডিএম) ১ ফেব্রুয়ারি ক্ষমতা দখল করা সামরিক জান্তাকে বেশ বিপাকেই ফেলেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution