শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০১:২৮ অপরাহ্ন

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ফরিদপুর জেলায় ঘর ও জমি পেল ১ হাজার ৪৮০ জন

ফরিদপুর প্রতিনিধি::

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে ফরিদপুর জেলায় প্রথম পর্যায়ে ১ হাজার ৪৮০ জন গৃহ ও ভূমিহীনদের মাঝে ঘর ও জমি প্রদান করা হয়েছে।

আজ শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে জাতীয়ভাবে ঘর ও জমি প্রদান অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে ফরিদপুর অংশে জেলা প্রশাসক অতুল সরকার ঘরের চাবি ও জমির কাগজপত্র প্রদান করেন। একই সময় জেলার ৯টি উপজেলায় একযোগে প্রকৃত গৃহহীনদের প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত মোট ১ হাজার ৪৮০ জন ব্যক্তির মাঝে ঘর ও জমি প্রদান করা হয়। এর আগে সকালে জেলা সদরের মাচ্চর ইউনিয়নের চন্ডিপুরের নির্মিত ঘর পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক।

ঘরের চাবি ও জমি হস্তান্তরের পূর্বে জাতীয় অনুষ্ঠানে ভিডিও কণফারেন্সিংয়ে যুক্ত হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য ও অনুষ্ঠান সম্প্রচার করা হয়। ফরিদপুর সদর উপজেলা পরিষদ হল রুমে এ উপলক্ষে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, পুলিশ সুপার মোঃ আলিমুজ্জামান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) দীপক কুমার রায়, ফরিদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, উপকার ভোগীসহ সমাজের সর্বস্তরের ব্যক্তি বর্গ অংশ গ্রহণ করে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনায় সারাদেশের মতো ফরিদপুরেও ভূমিহীন ও গৃহহীনদের পুনর্বাসনের জন্য প্রথম দফায় নির্মিত হয়েছে ১ হাজার ৪৮০টি বসতঘর। এছাড়া মোট ৩ দফায় মোট নির্মিত হচ্ছে ২ হাজার ৩৫ টি ঘর। ঘরসমূহ নির্মানে সর্বমোট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৩৫ কোটি ৬১ লাখ ২৫ হাজার টাকা।

উল্লেখ্য, জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের নেতৃত্বে নয়টি উপজেলার ইউএনও এবং এসিল্যান্ডদের তদারকিতে গড়ে উঠছে আশ্রয় হীন মানুষের স্বপ্নের ঠিকানা ‘স্বপ্ননীড়’। গৃহনির্মাণের এই কাজে সমানতালে ভূমিকা রেখেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি এবংমাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী। ‘আশ্রয়ণের অধিকার- শেখ হাসিনার উপহার’ স্লোগান সংবলিত এ প্রকল্পে সারাদেশের মতো ফরিদপুর জেলার প্রতিটি ভূমিহীন-ঘরহীন পরিবারের জন্যও থাকছে দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত ঘর। প্রতিটি পরিবারের জন্য বানানো হচ্ছে দুইকক্ষ বিশিষ্ট সেমিপাকা ঘর। পরিবার মাথাপিছু একটি ঘরের পাশাপাশি দেওয়া হচ্ছে ২ শতাংশ জমি।

আজ শনিবার প্রথম পর্যায়ে জেলার ফরিদপু সদর উপজেলায় ২৯২ টি ঘর, আলফাডাঙ্গা উপজেলায় ২২০ টি ঘর, বোয়ালমারী উপজেলায় ৯২ টি ঘর, মধুখালী
উপজেলায় ১৪৮ টি ঘর, নগরকান্দা উপজেলায় ১০৫ টি ঘর, সালথা উপজেলায় ৩৫ টি ঘর, ভাঙ্গা উপজেলায় ২৫০ টি ঘর, সদরপুর উপজেলায় ১৭৮ টি ঘর, চর ভদ্রাসন উপজেলায় ১৫০ টি ঘরের চাবি হস্তান্তর করাহয়। সরকারের এরকম কঠোর নির্দেশনা থাকায় ফরিদপুরের মাঠ প্রশাসনের কর্মচারী রাদিনরাত এক করে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এ যেন আরেক মুক্তিযুদ্ধ। মুজিববর্ষে সকল ভূমিহীন ও গৃহহীনদের গৃহনির্মাণ করে তাদেরকে পুনর্বাসন করার যুদ্ধ।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution