বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন

তরুণ-তরুণীদের জন্য বার ও রেস্টুরেন্টে যাতায়াতে কড়া নজরদারি

নিজস্ব প্রতিবেদক:: উত্তরা ব্যাম্বু শুট রেস্টুরেন্টে মদপান করে ইউল্যাবের দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনার পর রাজধানীর বার ও রেস্টুরেন্টগুলোতে নজরদারি বাড়িয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। বিশেষ করে শহরের অভিজাত এলাকাগুলোর বার ও রেস্টুরেন্টে তরুণ-তরুণীদের যাতায়াতে কড়া নজরদারি করবে ডিএমপি।

এ বিষয়ে বিভিন্ন বার, রেস্টুরেন্ট ও সংশ্লিষ্ট থানায় নির্দেশনাও পাঠানো হয়েছে। আর সে নির্দেশনা অনুযায়ী ইতিমধ্যেই বার ও রেস্টুরেন্টে তরুণ-তরুণীদের যাতায়াতে নজর রাখছে পুলিশ। বিশেষ করে তারা যেন রেস্টুরেন্টে গিয়ে অসামাজিক কাজ না করতে পারে, সে বিষয়ে কড়া নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ডিএমপির পক্ষ থেকে।

রাজধানীর অভিজাত এলাকাগুলোর বার ও রেস্টুরেন্টে উঠতি বয়সের তরুণ-তরুণীরা প্রায়ই মদপানের পার্টি করে বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। আর এসব পার্টিতে আবারও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটতে পারে। তাই রেস্টুরেন্টে যেনো তরুণ-তরুণীরা কোনো ধরনের মদপানের পার্টি না করতে পারে তা সে বিষয়ে মালিক পক্ষকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিনা কারণে রেস্টুরেন্টে ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাদের আড্ডাবাজি বন্ধের নির্দেশনাও দিয়েছে ডিএমপি। প্রয়োজনে রেস্টুরেন্টে আসা তরুণ-তরুণীদের জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি রেখে দেওয়ারও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ নির্দেশ অমান্য করলে কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবে ডিএমপির সংশ্লিষ্ট থানা।

বিষয়টি সম্পর্কে ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) ইফতেখায়রুল ইসলাম বলেন, ইউল্যাবের দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনার পর থেকে ডিএমপির কড়া নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বার ও রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষকে। তারা যেন কোনো মতেই রেস্টুরেন্ট বা বারে তরুণ-তরুণীদের মদপানের পার্টি না করতে দেয়। আর যারা এ নির্দেশ অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া যেসব রেস্টুরেন্ট মদপানের পার্টি আয়োজন করার সুযোগ দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলছে।

এদিকে লাইসেন্স ছাড়া যেসব রেস্টুরেন্ট মদপানের জায়গা দিচ্ছে তাদের তালিকা করছে মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। আর এ তালিকা পুলিশকে দেওয়া হচ্ছে। সে অনুযায়ী রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযানও পরিচালনা করেছে পুলিশ।

এ বিষয়ে মাদক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ আহসানুল জব্বার বলেন, যারা লাইসেন্স নিয়ে মদ বিক্রি করছে তাদের তালিকা আমাদের কাছে। তবে এখন যারা লাইসেন্স ছাড়া মদ বিক্রি বা পানের সুযোগ দিচ্ছে তাদের বিষয়ে আমরা খোঁজ নিচ্ছি। বিশেষ করে রেস্টুরেন্টগুলোতে আমরা নজরদারি বাড়িয়েছি। কোনো ধরনের অসঙ্গতি দেখলেই পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মদপানে একাধিক মৃত্যুর পর রাজধানীর উত্তরা ও গুলশান এলাকার বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। অভিযানে সনদ ছাড়া মদপানের জায়গায় দেওয়ায় রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষের ৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া অভিযানে বেশ কয়েকটি রেস্টুরেন্ট থেকে মদের বোতল জব্দ করে পুলিশ।

এ বিষয়ে ডিএমপির উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মো. শহিদুল্লাহ বলেন, উত্তরা ব্যাম্বু শুট রেস্টুরেন্টে বসে মদপানের ইউল্যাবের দুই শিক্ষার্থী মারা যায়। এরপর থেকেই উত্তরার বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে অভিযান ও নজরদারি বাড়িয়েছি। উত্তরায় যেসব রেস্টুরেন্ট লাইসেন্স ছাড়া মদপানের অনুমতি দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। এছাড়া যারা বাহির থেকে ভেজাল মদ এনে দুর্ঘটনা ঘটাবে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গত ২৮ জানুয়ারি ইউল্যাবের দ্বিতীয় বর্ষের এক শিক্ষার্থী তার ৪ বন্ধুসহ উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের ব্যাম্বু শুট রেস্টুরেন্টে যান। রেস্টুরেন্টে তারা ৫ জন একসঙ্গে মদপান করেন। একপর্যায়ে ওই শিক্ষার্থীর বান্ধবী নেহা অসুস্থ হয়ে পড়লে, তার এক বন্ধু নিয়ে চলে যান। পরে রেস্টুরেন্টে ওই শিক্ষার্থী তার দুই বন্ধ আরাফাত ও রায়হান মদপান করতেই থাকে। একপর্যায়ে ওই তরুণীও অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন রায়হান ও আরাফাত ওই তরুণীকে নিয়ে রেস্টুরেন্ট থেকে বের হয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই তরুণী গত ৩১ জানুয়ারি রাজধানীর আনোয়ার খান মডেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও তার বন্ধু আরাফাত সিটি হাসপাতালে মারা যায়। এ ঘটনায় মেয়েকে ধর্ষণ করা হয়েছে অভিযোগ এনে ওই শিক্ষার্থীর বাবা মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা করেন।

এদিকে গত ৩১ জানুয়ারি এশিয়াটিকের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ‘ফোর থট পিআর’ নামে একটি পাবলিক রিলেশন অ্যাজেন্সির দুই কর্মীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ভেজাল মদপান করেই তাদের মৃত্যু হয়েছ। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়েন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution