সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন

চুয়াডাঙ্গায় সড়কে গাছ ফেলে ডাকাতি, ৩০ লাখ টাকা লুট

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি, ই-কণ্ঠ টোয়েন্টিফোর ডটকম॥ চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় সড়কে গাছ ফেলে ঘণ্টাব্যাপী ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) রাত ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের গহেরপুর-সড়াবাড়িয়া সড়কের শালিকচড়া মাঠে এ ঘটনা ঘটে।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দর্শনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এইচ এম লুৎফুল কবীর।

স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার জীবননগর উপজেলার শেয়ালমারী পশুর হাট ছিল। পশুর কেনাবেচা শেষে ওই সড়কপথে বাড়ি যাচ্ছিলেন ক্রেতা-বিক্রেতারা। এ সময় হাফপ্যান্ট পরিহিত মুখোশধারী ১৫ থেকে ২০ জনের ডাকাত দল সড়কে গাছ ফেলে সবাইকে আটক করে ঘণ্টাব্যাপী তাদের সর্বস্ব লুট করে। ডাকাতি চলাকালে সড়ক দিয়ে যারাই যাতায়াত করেছে, তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে মালামাল লুট করেছে ডাকাতরা। পরে উদ্ধার হওয়া কয়েকজন গ্রামে গিয়ে জানালে গ্রামবাসী আসার খবর পেয়ে ডাকাত দল পালিয়ে যায়।

ডাকাতির কবলে পড়া গহেরপুর গ্রামের ঠিকাদার ও ইটভাটার মালিক আব্দুল ওয়াহেদের কাছ থেকে ৯ লাখ টাকা, ব্যবসায়িক কাজে আসা প্রাইভেটে থাকা ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনোজ কুমারের ছেলে বিশ্বজিৎসহ চারজনের কাছ থেকে ৫২ হাজার টাকা, একটি সোনার চেইন, লকেট, ব্রেসলেট, পাঁচটি আংটিসহ ১২ ভরি স্বর্ণালংকার; আলমডাঙ্গার দুই গরু বেপারির থেকে ১৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা নেয়। এ ছাড়া প্রত্যেক পথচারীর কাছ থেকেও টাকা লুট করেছে।

ডাকাতির কবলে পড়া খোকন বলেন, মোটরসাইকেল যোগে আমরা তিনজন বাড়ি ফিরছিলাম। এ সময় রামদা হাতে ১৫ থেকে ১৬ মুখোশধারী ডাকাত আমাদের গতিরোধ করে। তারা আমার মোবাইল ও ৮ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। পরে মোবাইল দিয়ে দেয়। এ সময় আমবোঝাই বাহন আলমসাধুচালকের মোবাইল ও টাকা লুট করে নেয়। মোবাইল চাইলে তাকে রামদা দিয়ে মারধর করে। পরে আমাকে ছেড়ে দেয়।

স্থানীয় বাসিন্দা লাভলু রহমান বলেন, স্থানীয় ইটভাটা মালিকের কাছ থেকে ৯ লাখ, দুই গরুর বেপারির ১৩ লাখ ৩০ হাজারসহ পথচারীদের টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়েছে। একটি প্রাইভেট কারচালক দূর থেকে বুঝতে পেরে ফিরে যাওয়ার সময় গাড়ি খাদে পড়ে যায়। পরে ডাকাতরা গিয়ে তাদের জিম্মি করে টাকা লুট করে। ঘণ্টাব্যাপী লুটকাণ্ডে ডাকাতরা প্রায় ৩০ লাখ টাকা লুটে নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য জিল্লুর রহমান জুয়েল বলেন, আগে কখনো এমন ডাকাতির ঘটনা ঘটেনি। এটা নজিরবিহীন ঘটনা। পাশাপাশি দুটি ইটভাটার লোকজন রাতে সজাগ থাকে। আর গরুর হাটের দিন হওয়ায় পুলিশ নিয়মিত টহল করে। কিন্তু ঘটনার সময় পুলিশ বড়শলুয়া কলেজ মাঠে ছিল। এ নিয়ে গ্রামের মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

দর্শনা থানার ওসি লুৎফুল কবীর গতকাল রাতে বলেন, সড়কে গাছ ফেলে প্রায় ১৫ থেকে ২০ মিনিট ধরে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে এসেছি। কী পরিমাণ টাকা নিয়েছে, এখনই বলা যাচ্ছে না। এ নিয়ে পুলিশের কোনো গাফিলতি নেই। ডাকাতদের ধরতে একাধিক টিম মাঠে নেমেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution