বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫৩ অপরাহ্ন

কিংবদন্তি শিল্পী আবদুল আলীমের ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

অনলাইন ডেস্কঃ বাংলা লোকসংগীতের কিংবদন্তি শিল্পী আবদুল আলীমের ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৭৪ সালের ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (তৎকালীন পিজি হাসপাতাল) মৃত্যুবরণ করেন তিনি। লোকসংগীতকে অবিশ্বাস্য এক উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন আবদুল আলীম। পল্লিগীতি, ভাটিয়ালি, দেহতত্ত্ব, মুর্শিদি ও ইসলামী গানের শিল্পী হিসেবে আজও তিনি অপ্রতিদ্বন্দ্বী।

কণ্ঠস্বরের অসাধারণ প্রতিভা নিয়ে ১৯৩১ সালের ২৭ জুলাই পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার তালিবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আবদুল আলীম। পেশাগত জীবনে তিনি ছিলেন ঢাকা সংগীত কলেজের লোকগীতি বিভাগের অধ্যাপক। কৈশোরেই গায়ক হিসেবে নাম করেছিলেন। মাত্র ১৩ বছর বয়সে তার গানের প্রথম রেকর্ড হয়। তবে অর্থনৈতিক অনটনের কারণে কোনো শিক্ষকের কাছে গান শেখার সুযোগ পাননি আবদুল আলীম। অন্যের গান শুনে শুনে তিনি শিখতেন আর বিভিন্ন পার্বণে সেগুলো গাইতেন।

আবদুল আলীমের বিখ্যাত গানগুলোর মধ্যে রয়েছে নাইয়া রে নায়ের বাদাম তুইলা, সর্বনাশা পদ্মা নদী, হলুদিয়া পাখি, মেঘনার কূলে ঘর বাঁধিলাম, এই যে দুনিয়া, দোল দোল দুলুনি, দুয়ারে আইসাছে পালকি, কেন বা তারে সঁপে দিলাম দেহ-মন-প্রাণ, মনে বড় আশা ছিল যাব মদিনায় ইত্যাদি।

বাংলাদেশের প্রথম চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’সহ বিভিন্ন বাংলা চলচ্চিত্রে গান করেছেন আবদুল আলীম। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রটি হলো ‘লালন ফকির’। সব মিলিয়ে প্রায় ৫০০টির মতো গান রেকর্ড হয়েছিল তার।

আব্দুল আলীম বেশ কয়েকটি জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন; এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে একুশে পদক, পূর্বাণী চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি পুরস্কার। পাকিস্তান মিউজিক কনফারেন্স, লাহোরে সঙ্গীত পরিবেশন করে আব্দুল আলীম পাঁচটি স্বর্ণ পদক পেয়েছিলেন। বাংলাদেশ সরকার ১৯৭৭ সালে তাকে মরণোত্তর একুশে পদক প্রদান করে সম্মানিত করে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution